নামাজ

দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ বদলে দিবে আপনাকে

দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ বদলে দিবে আপনাকে

নামাজ বদলে দিবে আপনাকে। বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম। আমরা সকলেই জানি নামাজ বেহেস্তের চাবি। তবুও প্রতিদিনের নানা কর্ম ব্যস্ততার ভিড়ে আমরা সঠিক সময়ে নামাজ পড়তে ভুলে যাই। অর্থাৎ, আল্লাহ তাআলা আমাদেরকে এই পৃথিবীতে যে কারণে পাঠিয়েছে আমরা ঠিক সেই জিনিসটা ভুলে আমাদের ইহকাল জীবনের নানা রকম কাজে ব্যস্ত থাকি। দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ বদলে দিবে আপনাকে

নামাজ একটি ফরজ ইবাদত। প্রতিটি মুসলমানের জন্য দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ার বিধান রয়েছে। ফজর,যোহর,আসর,মাগরিব এবং এশা। সঠিক সময়ে আল্লাহর ডাকে সারা দিয়ে জামায়াতের সাথে সালাত আদায় করলে আমাদের শরীর ও মন উভয়ই প্রফুল্ল থাকে। নামাজ শব্দটিকে আরবিতে বলা হয় সালাত। সালাত শব্দের আভিধানিক অর্থ দোয়া, ইস্তিগফার বা ক্ষমা প্রার্থনা করা।

নামাজই একমাত্র ইবাদত, যার মাধ্যমে মানুষ দুনিয়ার সব কাজ ছেড়ে শুধুমাত্র আল্লাহর জন্য নিবেদিত হয়ে যায়। এই সালাত মানুষকে দুনিয়ার সকল খারাপ কাজ থেকে ধুয়ে মুছে পাক-পবিত্র করে দেয়। নামাজ বদলে দিবে আপনাকে

আমি আপনাদের একটা ছোট্ট উদাহরণ দেই, ধরুন একজন মানুষ সকালে ঘুম থেকে উঠে তারপর সে ফ্রেশ হয় এবং নাস্তা করে। পরবর্তীতে সেই স্কুল কলেজে যায় অথবা অন্য কোন কর্মক্ষেত্রে যায়।  দুপুরবেলা সে খাওয়া-দাওয়া করে, তার প্রয়োজনীয় কাজকর্ম করে সন্ধ্যার দিকে কাজ শেষ করে বাসায় ফিরে রাতের খাবার খায় এবং ঘুমিয়ে পড়ে। অতঃপর পরবর্তী সকাল থেকে আবার ভাবে আবার এভাবে কাজ শুরু করে। একটি দিন 24 ঘন্টা অথচ 24 ঘন্টা আমরা কতই না কাজ করি, সব সময় ব্যস্ত থাকে, কিন্তু সারাদিনে অনেক মানুষের সময় হয়না আল্লাহর কথা স্মরণ করার, আল্লাহর ডাকে সাড়া দেওয়ার। প্রতিদিন পাঁচবার আযান দেয় অর্থাৎ পাঁচবার সৃষ্টিকর্তা আমাদেরকে ডাকেন তার এবাদত করার জন্য। অথচ আমরা তাকে ভুলে আমাদের ইহকালের জীবনের সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দেই। আমরা ভুলে যাই ইহকালের জীবনটা ক্ষণস্থায়ী বেশি দিনের জন্য না। যেকোনো সময় যেকোনো মুহূর্তে আমাদের শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করতে হতে পারে। দিনশেষে আমাদের সবাইকে যেতে হবে পরকালের জীবনে। জীবনের কোন সীমা নেই এবং সেই সময়ে আমাদেরকে ইহকালের সকল কাজের হিসাব দিতে হবে মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে। সেই দিনের জন্য আমরা কেউই প্রস্তুতি নেই না।

খুব কম মানুষ আছে যারা দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়েন নিয়মিত সৃষ্টিকর্তাকে স্মরণ করেন আল্লাহর রাসূলের দেখানো পথে চলেন।

অথচ সৃষ্টিকর্তা আমাদেরকে এই পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন শুধুমাত্র তার এবাদত করার জন্য একবার নিজেকে প্রশ্ন করে দেখুন আপনি কি করছেন?

প্রতিদিন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের উপকারিতা:

  • আমরা মানুষ জাতি আমাদের জীবন নিয়ে নানারকম দুশ্চিন্তার মাঝখানে থাকি। নানারকম সমস্যা নিয়ে জর্জরিত আমাদের এই ছোট্ট জীবন। সারাজীবন নানা কাজের মাঝে চেষ্টা করেও দিনশেষে পরিপূর্ন সুখ আমরা খুঁজে পাইনা। কি যেন নেই, কিসের যেন অভাব।
  • অথচ, আল্লাহ তাআলা আমাদেরকে সব সময় ধৈর্য ধারণ করতে বলেছেন। সবচেয়ে কঠিন সময়েও আমরা যদি মহান আল্লাহ তা’আলাকে স্মরণ করি। তাহলে, সকল বিপদ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব, দুশ্চিন্তা ঝেড়ে ফেলা সম্ভব।
  • আমরা যদি দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত সালাত জামাতের সাথে আদায় করি, তাহলে আমরা আমাদের দৈনন্দিন জীবনে সময় সম্পর্কে সচেতন হব।
  • নামাজ পড়ার পূর্বে অজু করা প্রয়োজন। নিয়মিত ওযুর মাধ্যমে আমরা নানা রকম রোগবালাই থেকে মুক্ত থাকতে পারি। নিয়মিত নামায পড়ার মাধ্যমে আমরা আল্লাহ তা’আলার সান্নিধ্যে আসতে পারি, আল্লাহ তাআলার কাছে মোনাজাতে আমাদের মনের কথাগুলো আমাদের জীবনের সকল চাওয়া পাওয়া গুলো বলতে পারি।

আমরা সবাই জানি কবুল করার মালিক একমাত্র মহান আল্লাহ তায়ালা। তাই বান্দা হিসেবে সবসময় উচিত সঠিক নিয়মে এবং সঠিক সময় সালাত আদায় করা আল্লাহকে স্মরণ করা এবং আল্লাহর রাসূলের দেখানো পথে চলা।

 

_____________________________________
এই পোস্টটি করেছেন: Hamim Hossain ( Web Designer | Digital Marketer | Content Writer )

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button